তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি আরবের কনস্যুলেট ভবনে দেশটির ভিন্নমতাবলম্বী সাংবাদিক জামাল খাশোগিকে হত্যার গ্রিন সিগনাল দিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জামাতা জ্যারেড কুশনার। সোমবার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে যুক্তরাজ্যের সাপ্তাহিক ম্যাগাজিন দ্য স্পেক্টেটর এর বরাত দিয়ে এই তথ্য জানিয়েছে ইরানের নিউজ সাইট পার্সটুডে। প্রতিবেদনটিতে বলা হয়, সৌদি ক্রাউন প্রিন্স এবং ট্রাম্পের জামাতা একে অন্যের ঘনিষ্ঠ বন্ধু। এই হত্যায় ট্রাম্পের জামাতার গ্রিন সিগনাল দেয়ার বিষয়টি যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধি পরিষদের তদন্ত কমিটি জানে এবং তদন্ত করার পরিকল্পনা করছে।

জামাল খাশোগি গত বছরের ২ অক্টোবর ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেট ভবনে কিছু জরুরি কাগজপত্র আনতে গিয়ে নিখোঁজ হন। পরে জানা যায়, মোহাম্মদ বিন সালমানের অনুগত নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা তাকে হত্যা এবং তার মরদেহ পুড়িয়ে ফেলে। যুক্তরাষ্ট্রের গণমাধ্যম ওয়াশিংটন পোস্টের কলামিস্ট জামাল খাশোগি সৌদি সরকারের বিভিন্ন নীতির সমালোচনা করতেন। গণমাধ্যমটি গত বছরের নভেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার বরাত দিয়ে জানায়, সৌদি ক্রাউন প্রিন্সের নির্দেশে জামাল খাশোগিকে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়া জাতিসংঘের এক তদন্ত কমিটি দাবি করে, জামাল খাশোগিকে হত্যার প্রধান সন্দেহভাজন ব্যক্তি মোহাম্মদ বিন সালমান। সম্প্রতি এই হত্যার দায় স্বীকার করেছেন সৌদি ক্রাউন প্রিন্স। জামাল খাশোগিকে হত্যার বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তুলে ধরে তুরস্ক।