গাজীপুরে তুচ্ছ ঘটনার জেরে বহিরাগতদের হামলায় এক ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের শিক্ষক-ছাত্র-ছাত্রীসহ ১২জন আহত হয়েছে। গুরুতর আহত দু’ছাত্রকে ঢাকা মেডিকেল কলেহ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে। হামলাকারীরা এসময় ব্যাপক ভাংচুর করেছে। শনিবার সন্ধ্যায় শহরের বঙ্গতাজ কমিউনিটি অডিটোরিয়ামে ইন্সটিটিউট অব টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড ইনফরমেশন টেকনোলজী (আই-টেইট)’র নবীন বরণ ও বিদায় অনুষ্ঠানে এ ঘটনা ঘটেছে।

অধ্যক্ষ শহীদুল ইসলাম ও আহতরা জানান, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের কোনাবাড়ি এলাকার ইন্সটিটিউট অব টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড ইনফরমেশন টেকনোলজী (আই-টেইট)’র শিক্ষার্থীদের নবীণ বরণ ও বিদায় অনুষ্ঠাণ শনিবার শহরের রথখোলা এলাকার বঙ্গতাজ কমিউনিটি অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হচ্ছিল। আলোচনা অনুষ্ঠাণ শেষে সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠাণ চলাকালে বহিরাগত এক যুবক অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশের চেষ্টা করলে এক ছাত্র বাধা দেয়। এনিয়ে অডিটোরিয়ামের সামনে কলেজের দু’ছাত্রের মাঝে কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে তাদের মধ্যে হাতাহাতি হয়। এসময় কলেজের ইলেক্ট্রিক্যাল বিভাগের শিক্ষক নাজমুল ওই দু’ছাত্রকে অনুষ্ঠানস্থলে নিয়ে আসেন এবং দু’জনের মধ্যে মিমাংসা করে দেন। এসময় কয়েক বহিরাগত যুবক ঘটনাস্থলে এসে এক ছাত্রের পক্ষ নিয়ে ওই শিক্ষককে মারধর করে। এসময় অন্য শিক্ষার্থীরা ধাওয়া করে বহিরাগত একজনকে আটক করে, তবে অপরজন পালিয়ে যায়। এঘটনার কিছুসময় পর পালিয়ে যাওয়া ওই যুবকের নেতৃত্বে ১৭/১৮ বহিরাগত যুবক চাপাতি, ছোরা, রড ও লাঠিসোটা নিয়ে অডিটোরিয়ামে আসে। তারা কলাপসিবল গেইটের তালা ভেঙ্গে ভিতরে অনুষ্ঠাণস্থলে প্রবেশ করে। এসময় বহিরাগতরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে এবং মারধর করতে থাকে। এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়। এঘটনায় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা আতংকিত হয়ে দিকবিদিক ছুটোছুটি করতে থাকে। এঘটনায় কলেজের গভর্ণিং বডির সভাপতি ড. ইঞ্জিনিয়ার একেএম আবু রায়হান ও শিক্ষক নাজমুলসহ অন্ততঃ ১২জন শিক্ষক-ছাত্র-ছাত্রী আহত হয়। হামলাকারীরা দরজা জানালার কাঁচ ও চেয়ার টেবিলসহ আসবাবপত্র ভাংচুর করে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। হামলায় আহত মৃদুল (২০), সৌরভ হোসেন (১৭), সাকিব (১৮), রিমন (১৮) ও উম্মে হাফিজাকে (১৭) শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে সেখান থেকে গুরুতর আহত মৃদুল ও সৌরভকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেহ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। আহত অন্যদের বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।