সোনালী ব্যাংকের চাঁপাইনবাবগঞ্জ শাখায় পেনশনের টাকা তুলতে গিয়েছিলেন প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা তৌফিকুল ইসলামের স্ত্রী তাহেরা বেগম (৭০)। কিন্তু ব্যাংকে অনিয়মের প্রতিবাদ করতে গিয়ে উল্টো গলাধাক্কা-মারধরের শিকার হয়েছেন তিনি ও তার সন্তান। মঙ্গলবার দুপুর বারোটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

সত্তরোর্ধ্ব তাহেরা বেগম জানান, সকাল এগারোটার দিকে তিনি জেলা শহরের কাঁঠালবাগিচাস্থ চাঁপাইনবাবঞ্জ শাখায় যান। সেখানে পেনশনের টাকা তুলতে গিয়ে বিপাকে পড়েন। দীর্ঘ লাইনে প্রায় ঘণ্টাখানেক দাঁড়িয়ে দেখতে পান কিছু আনসার সদস্য টাকার বিনিময়ে কয়েকজনের সিরিয়াল আগে দিয়ে দেন। তাৎক্ষণিকভাবে তিনি এর প্রতিবাদ করলে আনসার সদস্যরা তাকে গালিগালাজ করেন। এক পর্যায়ে ধাক্কা দিয়ে ব্যাংক থেকে বের করে দেয়ার চেষ্টা করেন। এ সময় তার ছেলে তারিকুল ইসলাম রাসেলও প্রতিবাদ করলে আনসার সদস্যরা তাকেও মারধর করেন।এ বিষয়ে জানতে চাইলে ব্রাঞ্চ ম্যানেজার তারেক আমিন ঘটনার কথা স্বীকার করে  জানান, ব্যাংকে কোনো অনিয়ম হয়নি। কাউকে মারধরও করা হয়নি। ঘটনাটা ভুল বোঝাবুঝি থেকে হয়েছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে ব্যাংকের নির্ধারিত সময় মাত্র তিন ঘণ্টা করা হয়েছে। এর মধ্যেই ঝুঁকি নিয়েই আমরা সীমিত সংখ্যক জনবলের বিপরীতে কয়েকগুণ গ্রাহককে সেবা দিচ্ছি। সবাইকেই ধৈর্য ধরে সেবা নিতে হবে।তিনি বলেন, খুবই ছোট্ট একটা ঘটনা। পরে এটা মিটমাট হয়ে গেছে। আমরাও তাদের সরি বলেছি। তারাও আমাদের সরি বলেছে।