গাজীপুরে দোকান থেকে হাত-পা বাঁধা এক কর্মচারীর লাশ বৃহষ্পতিবার উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহতের নাম কাওসার (১৯)। সে ভোলার তজুমুদ্দিন থানার মলমসুরা গ্রামের মোকসেদ আলীর ছেলে।

জয়দেবপুর থানার ওসি মো. জাবেদুল ইসলাম ও স্থানীয়রা জানান, গাজীপুর সদর উপজেলার ভবানীপুর বাজার এলাকার রাফি-রাতুল টায়ার এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং শপ নামের ভলকানাইজিং দোকানের কর্মচারী কাওসার স্থানীয় নার্গিসের বাড়ি ভাড়া থাকে। তবে দোকানের নিরাপত্তার স্বার্থে সে রাতে দোকানেই থাকতো। প্রতিদিনের মতো সে বুধবার রাতের খাবার খেয়ে দোকানেই ঘুমিয়ে পড়ে। পরদিন (বৃহষ্পতিবার) সকালে দোকানের মালিক মোবাইল ফোনে কাওসারকে না পেয়ে তার প্রতিষ্ঠাণে চলে এসে বন্ধ দেখতে পান। ডাকাডাকি করেও কাওসারের কোন সাড়া শব্দ পাওয়া যায়নি। এসময় ধাক্কা লেগে দরজা খুলে যায়। পরে ভিতরে ঢুকে কাওসারের লাশ দেখতে পায় স্থানীয়রা। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। নিহতের হাত-পা রশি দিয়ে বাঁধা ও গলায় কাপড় পেঁচানো ছিল। পূর্বশত্রুতার জেরে এ হত্যাকান্ডটি ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। এব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে।