গাজীপুরে বকেয়া বেতন ভাতাসহ পাওনাদি পরিশেধের দাবীতে বৃহষ্পতিবার বিক্ষোভ করেছে কয়েক কারখানার শ্রমিকরা। বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা এসময় মহাসড়ক অবরোধ করেছে শ্রমিকরা। এতে সড়কে দীর্ঘ সময় যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। পরে শিল্প পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে।

গাজীপুর শিল্প পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুশান্ত সরকার জানান, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের কোনাবাড়ি শিল্প এলাকার দুরন্ত গার্মেন্টসের শ্রমিকরা গত কিছুদিন ধরে তাদের ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসের বেতন ভাতাসহ পাওনাদি পরিশোধের জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে দাবী জানিয়ে আসছিল। কিন্তু কারখানা কর্তৃপক্ষ ঘোষণা দিয়ে একাধিকবার তারিখ নির্ধারণ করলেও শ্রমিকদের পাওনাদি পরিশোধ করেনি। এতে শ্রমিকদের মাঝে অসন্তোষ ছড়িয়ে পড়ে। বৃহষ্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে শ্রমিকরা কারখানার গেইটে জড়ো হয়ে অবস্থান নেয়। এসময় তারা তাদের পাওনাদি পরিশোধের দাবীতে বিক্ষোভ শুরু করে। কর্তৃপক্ষের সাড়া না পেয়ে শ্রমিকরা বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে তারা কারখানার পার্শ্ববর্তী ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের উপর অবস্থান নিয়ে অবরোধ সৃষ্টি করে। এতে মহাসড়কের উভয় পাশে যানবাহন আটকা পড়ে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে। এসময় পুলিশ উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ে কারখানার মালিকের সঙ্গে দীর্ঘক্ষণ আলোচনা করে। পরে কারখানার মালিক আগামি ৭মে শ্রমিকদের পাওনাদি পরিশোধের আশ^াস দিলে দুপুর দেড়টার দিকে শ্রমিকরা অবরোধ তুলে ওই এলাকা ত্যাগ করলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

আন্দোলনরত ওই কারখানার একাধিক শ্রমিক জানান, এ কারখানার শ্রমিকদের ফেব্রুয়ারি এবং মার্চ মার্চের বেতন-ভাতা বকেয়া রয়েছে। কারখানার মালিক পক্ষ একাধিকবার তারিখ ঘোষণা দিয়েও শ্রমিকদের পাওনাদি পরিশোধ করেনি। ফলে অর্থাভাবে শ্রমিকরা মানবেতর দিন যাপন করছে। শ্রমিকরা তাদের বাড়ি ভাড়া ও দোকানের বাকি পরিশোধ করতে পারছে না। টাকার জন্য বাড়ি ও দোকানের মালিক শ্রমিকদের চাপ দিচ্ছে। এদিকে কারখানা থেকে পাওনাদি পাওয়ার তারিখ অনুযায়ী পাওনাদারদের কথা দিয়ে তা বরখেলাপ হওয়ায় এখন আর কেউ ধার দিচ্ছে না। এখন আমাদের পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে। আমাদের পাওনাদি না পেলে দিলে আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

এছাড়াও কাশিমপুর এলাকার ডে স্ট্যান্ড লিমিটেড ও ডেল্টা স্পিনিং কারখানার শ্রমিকরা বকেয়া বেতন ভাতা পরিশোধের দাবীতে একই দিন বিক্ষোভ করেছে। পুলিশের হস্তক্ষেপে কারখানা কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদেও পাওনাদি বিকেলে পরিশোধের আশ্বাস দিলে শ্রমিকরা তাদের আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিত করলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।
অপরদিকে শিল্প পুলিশের ইন্সপেক্টর ইসলাম হোসেন জানান, গাজীপুর মহানগরীর ভোগড়া এলাকার সেইলর মুন কারখানার শ্রমিকরা মার্চ মাসের বেতন ভাতা পরিশোধের দাবীতে বিক্ষোভ করেছে। কারখানা কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদের পাওনাদি পরিশোধের তারিখ একাধিকবার ঘোষণা দিয়েও পরিশোধ করেনি। এতে শ্রমিকরা বিক্ষুব্ধ হয়ে সকাল হতে কারখানার গেইটে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। শ্রমিক অসন্তোষের মুখে তাদের পাওনাদি দুপুরে পরিশোধের আশ্বাস দেয় কারখানা কর্তৃপক্ষ। শ্রমিকরা বিকেল পর্যন্ত গেইটে অবস্থান করতে থাকে। দীর্ঘ সময় অপেক্ষায় থেকে ধৈর্য্য হারিয়ে তারা আবারো বিক্ষোভ শুরু করে। পরে পুলিশের হস্তক্ষেপে কারখানা কর্তৃপক্ষ ব্যাংকিং সমস্যার কথা তুলে ধরে আগামী ২মে শ্রমিকদের পাওনাদি পরিশোধের ঘোষণা দেয়। বেতন পাওয়ার আশ্বাস পেয়ে শ্রমিকরা আন্দোলন স্থগিত করে কারখানা এলাকা ত্যাগ করলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।
বৃহস্পতিবার টঙ্গীর চেরেগালী মার্কেট এলাকায় পার্ল প্রিন্স অ্যাপারেলস কারখানার শ্রমিকরা মার্চের বেতনের জন্য শ্রমিক অসন্তোষ দেখা দেয়। পরে পুলিশ কতৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে বেতন প্রদানের আশ^াসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন।

এদিকে শিল্প পুলিশের টঙ্গী জোনের সহকারী পুলিশ সুপার এস আলম জানান, টঙ্গী বিসিকের ব্রাইট এ্যাপারেলস লিমিটেড কারখানার শ্রমিকরা বেতন ভাতা পরিশোধ ও বন্ধ কারখানা চালু করার দাবীতে বৃহষ্পতিবার বিক্ষোভ করেছে। আন্দোলনরত শ্রমিকরা জানায়, কারখানা কর্তৃপক্ষের ঘোষণানুযায়ী শ্রমিকদের বেতনভাতা পরিশোধের পূর্ব নির্ধারিত ছিল বৃহষ্পতিবার। শ্রমিকরা কাজে যোগ দিতে এবং তাদের বেতন ভাতা নেওয়ার বৃহষ্পতিবার সকালে কারখানার গেইটে এসে জড়ো হয়। এসময় তারা কারখানা বন্ধ দেখতে পেয়ে বিক্ষোভ শুরু করে এবং বেতন ভাতা পরিশোধ ও বন্ধ কারখানা চালু করার দাবী জানায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। তবে কারখানা কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে জানান, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে কারখানা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।