গত মাসে কানাডার ইতিহাসে ভয়াবহ বন্দুক হামলার ঘটনার পর দেশটিতে অ্যাসল্ট-ধরনের বন্দুক নিষিদ্ধ করেছেন প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো। নতুন নিয়ম অনুযায়ী, দেড় হাজার ধরনের অ্যাসল্ট অস্ত্র বিক্রি, পরিবহন, আমদানি ও ব্যবহার অবৈধ বলে বিবেচিত হবে। খবর বিবিসির।

এই নিষেধাজ্ঞা তাৎক্ষণিকভাবে কার্যকর হবে। তবে আইন মেনে চলা বন্দুক মালিকদের ক্ষেত্রে দুই বছরের সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করা হয়েছে। এই নিষেধাজ্ঞাকে বৈধতা দিতে একটি আইন আনা হবে বলেও জানিয়েছেন ট্রুডো। যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানে বন্দুকের বিষয় লিপিবদ্ধ থাকলেও কানাডার ক্ষেত্রে তেমনটা নয়। কিন্তু দেশটির বিশেষ করে গ্রাম এলাকায় বন্দুকের মালিকানার বিষয়টি খুবই জনপ্রিয়।

ট্রুডো বলেন, অধিকাংশ বন্দুক মালিকই আইন মেনে চলেন, কিন্তু অ্যাসল্ট অস্ত্রের কোনও সুবিধাজনক উদ্দেশ্য নেই। শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, এইসব অস্ত্র শুধু একটি এবং একটিমাত্র উদ্দেশ্য নিয়ে তৈরি করা হয়েছিল, আর তা হচ্ছে- স্বল্প সময়ের মধ্যে অনেক বেশি মানুষকে হত্যা করা।
একটি হরিণ শিকারের জন্য আপনার এআর-15 দরকার নেই বলেও মন্তব্য করেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী।
মূলত ২০১৭ সালে কিউবেকের একটি মসজিদে বন্দুক হামলা, ২০১৮ সালে টরেন্টোর একটি বাণিজ্যিক সড়কে বন্দুক হামলা এবং সবশেষ নোভা স্কটিয়ায় কানাডার ইতিহাসের ভয়াবহতম বন্দুক হামলার ঘটনার অ্যাসল্ট জাতীয় অস্ত্র নিষিদ্ধে দাবি জোরদার হয়। এমন পরিস্থিতিতে অ্যাসল্ট জাতীয় অস্ত্র নিষিদ্ধ করলেন ট্রুডো।