ঢাকার গুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ডে কোভিড-১৯ ইউনিটের পাঁচ রোগীর মৃত্যুর ঘটনার বিচারিক তদন্ত চেয়ে হাই কোর্টে একটি রিট আবেদন করা হয়েছে। সেই সঙ্গে মৃত পাঁচ রোগীর পরিবারের জন্য দৃষ্টান্তমূলক ক্ষতিপূরণ দেওয়ারও নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে রিটে। সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী রেদোয়ান আহমেদ রানজীব ও হামিদুল মিসবাহ সোমবার জনস্বার্থে এ রিট আবেদন করেন।

আইনজীবী রেদোয়ান বলেন, বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের ভার্চুয়াল হাই কোর্ট বেঞ্চে আজ রিট আবেদনটি দাখিল করা হয়েছে। কবে শুনানি হবে তা এখনও আমরা জানতে পারিনি। তারিখ দিলে আবেদনটির পক্ষে শুনানি করবেন আইনজীবী অনিক আর হক।

ডেন্টাল কাউন্সিল অ্যাক্ট, ২০১০- এর বিধান অনুযায়ী ইউনাইটেড হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার নিস্ক্রিয়তা কেন আইনগত কতৃত্ববহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না এবং এ ঘটনায় অবহেলার অভিযোগ এনে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নিতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না মর্মে রুল চাওয়া হয়েছে এ রিট আবেদনে। এছাড়াও এ ঘটনায় বাংলাদেশ ন্যাশনাল বিল্ডিং কোড (বিএনবিসি) লঙ্ঘনের দায় আছে কি না, তা খতিয়ে দেখতে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানের প্রতি নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে।

স্বাস্থ্য সচিব, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের (বিএমডিসি) চেয়ারম্যান, পুলিশের মহাপরিদর্শক, ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার, বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) চেয়ারম্যান ও ইউনাইটেড হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের পক্ষে হাসপাতালটির ব্যবস্থাপনা পরিচালককে বিবাদী করা হয়েছে রিটে।

গত বুধবার রাত পৌনে ১০টার দিকে গুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতালের নিচের প্রাঙ্গণে করোনাভাইরাস রোগীদের জন্য স্থাপিত আইসোলেশন ইউনিটে আগুন লাগে। আধা ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হলেও তার মধ্যেই পাঁচ রোগীর মৃত্যু হয় বলে জানায় ফায়ার সার্ভিস। নিহতরা হলেন, মো. মাহবুব (৫০), মো. মনির হোসেন (৭৫), ভারনন এ্যান্থনি পল (৭৪), খোদেজা বেগম (৭০) ও রিয়াজ উল আলম (৪৫)। ঘটনার পরদিনই ফায়ার সার্ভিসের পক্ষ থেকে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি করা হয়।

উপ-পরিচালক দেবাশীষ বর্ধনের নেতৃত্বে গঠিত এই কমিটিতে সদস্য হিসেবে আছেন ফায়ার ব্রিগেড ট্রেনিং সেন্টারের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ বাবুল চক্রবর্তী, উপ- সহকারী পরিচালক নিয়াজ আহমেদ এবং বারিধারার জ্যেষ্ঠ স্টেশন অফিসার মো. আবুল কালাম আজাদ।