নওগাঁর পোরশায় প্রায় সাড়ে ৪ শতাধিক আমগাছ কেটে ও উপড়ে ভেঙে ফেলেছে প্রতিপক্ষ। সোমবার (২৯জুন) রাতে ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার গাঙ্গুরিয়া ইউনিয়নের কাদিপুর সংলগ্ন মাঠে।

আম গাছের মালিক গাঙ্গুরিয়া গ্রামের মৃতঃ হাজি ধন মোহাম্মদ এর ছেলে হাজি মোঃ আব্দুল খালেক জানান, এই জমিটি আমার বাবার। আমি আমার জন্মের পর থেকেই এই জমি ভোগদখলে থেকে চাষাবাদ করে খেয়ে আসছি।

কিন্তু প্রতিপক্ষ আসরাফ মাস্টার ও তার লোকজন এই জমি নিজের জমি বলে দাবি করে এবং কোর্টে মামলা মোকাদ্দমা করে। পর পর আমি ২টি মামলা চ্যালেঞ্জ করলেও সে (বাদী) অনুপস্থিত থাকার কারণে মামলাটি বিজ্ঞ আদালত খারিজ করে দেন।

মর্মে আমি আমার বাবার পৈতৃক সম্মত্তি ভোগ দখল করিতে থাকি। এমতাবস্থায় কিছুদিন পূর্বে প্রতিপক্ষ আসরাফ মাষ্টার আবারোও উক্ত জমি নিজের বলে দাবি করলে পোরশা উপজেলা চেয়ারম্যান শালিশের মাধ্যমে উক্ত জমি আমার বলে রায় দেন এবং চেয়ারম্যান ও থানা পুলিশের সাথে পরামর্শক্রমে আমার জমিতে প্রায় ৭০-৮০হাজার টাকা খরচ করে আম গাছ রোপন করি।

এর পর গত ২৯/০৬/২০২০ইং তারিখ সোমবার দিবাগত রাতের আধারে নির্বিচারে আমার প্রায় সাড়ে ৪শতাধিক আমগাছ কেটে ও ভেঙে ফেলেছে প্রতিপক্ষের লোকজন।

এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলেও জানান তিনি। এ বিষয়ে অভিযুক্ত প্রতিপক্ষ আসরাফ মাষ্টারের সাথে মোবাইল ফোনে কথা হলেও তিনি এ বিষয়ে কোন কথা বলতে রাজি হননি।

মোঃ খালেদ বিন ফিরোজ