গাজীপুরে পারিবারিক কলহের জেরে এক ব্যাক্তি তার স্ত্রীকে গলায় ওড়না পেচিয়ে শ্বাসরোধে খুন করেছে। রবিবার নিহতের অর্ধগলিত লাশ করেছে পুলিশ। ঘটনার পর থেকে নিহতের স্বামী পলাতক রয়েছে। নিহতের নাম- মুনশেফা আক্তার (৩০)। তিনি রংপুরের পীরগঞ্জ থানার শিবপুর এলাকার দুদু মিয়ার স্ত্রী। মুনসেফার বাড়ি একই জেলার মিঠাপুকুর থানার রাঙ্গাপুকুর এলাকায়।

নিহতের ভগ্নীপতি আশিক মিয়া ও স্থানীয়রা জানান, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ভোগড়া বাইপাস (পেয়ারা বাগান) এলাকায় ভাড়া বাসায় থেকে দুদু মিয়া ও তার স্ত্রী মুনশেফা স্থানীয় কাঁচামালের আড়তে দিন মজুরের কাজ করতেন। গত কিছুদিন ধরে পারিবারিক বিভিন্ন বিষয়াদি নিয়ে তাদের মাঝে ঝগড়া বিবাদ চলে আসছিল। শুক্রবার সন্ধ্যায় মাগরিবের নামাজ পড়ার জন্য ওযু করতে যায় মুনশেফা। ওযু করতে দেরি হওয়ায় স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে আবারো ঝগড়া বাদে। বিষয়টি রাতেই পারিবারিকভাবে মীমাংসার পর তারা ঘুমিয়ে পড়ে। পরে রাতের কোন এক সময় স্বামী দুদু মিয়া স্ত্রীকে হত্যা করে পালিয়ে যায়। রবিবার সকালে তাদের ঘর থেকে দুর্গন্ধ বের হতে থাকলে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মুনশেফার অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে। ময়না তদন্তের জন্য নিহতের লাশ শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি’র) বাসন থানার ওসি রফিকুল ইসলাম চৌধুরী জানান, নিহতের লাশে পচন ধরেছে। তার গলায় কালো দাগ রয়েছে। অন্ততঃ ২/৩দিন আগে তাকে হত্যা করা হয়েছে। পারিবারিক কলহের জেরে গলায় ওড়না পেচিয়ে শ্বাসরোধে তাকে হত্যা করার পর স্বামী পালিয়ে গেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে।