গাজীপুরের শ্রীপুরে চিকিৎসার জন্য আসা অসুস্থ্য এক যুবতীকে ধর্ষণের অভিযোগে এক হাসপাতালের মালিককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতের নাম ড. মো. নুরুল ইসলাম শেখ (৪৮)। তিনি গাজীপুরের জয়দেবপুর থানার জানাকুর গ্রামের মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে। ড. মো নুরুল ইসলাম শেখ গাজীপুরের রাজেন্দ্রপুর সেনানিবাস সংলগ্ন বাংলাদেশ নরওয়ে ফ্রেন্ডশীপ হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

শ্রীপুর থানার ওসি খোন্দকার ইমাম হোসেন মামলার উদ্ধৃতি দিয়ে জানান, গত ২০ সেপ্টেম্বর সকালে অসুস্থ্য এক যুবতী চিকিৎসা করাতে বাংলাদেশ নরওয়ে ফ্রেন্ডশীপ হাসপাতালে যান। হাসপাতালের চিকিৎসক ওই নারীকে রক্ত ও প্রশ্রাব পরীক্ষা করার পরামর্শ দেন। রক্ত ও প্রশ্রাব নমূনা রেখে কোনো প্রকার কাগজপত্র না দিয়ে পরদিন রিপোর্ট নিয়ে যেতে বলেন। এতে ওই যুবতী হাসপাতাল থেকে তার ভাড়া বাসা শ্রীপুর উপজেলার রাজাবাড়ী ইউনিয়নের ধলাদিয়ায় চলে যান। তিনি স্থানীয় এক পোশাক কারখানার কর্মী। তার গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহের ত্রিশাল এলাকায়। পরীক্ষার জন্য দেওয়া নমূনা নষ্ট হয়ে যাওয়ার কথা বলে হাসপাতালে যাওয়ার জন্য ওই যুবতীকে খবর পাঠান নুরুল ইসলাম। পরদিন (২১ সেপ্টেম্বর) হাসপাতালে যেতে দেরী হওয়ায় যুবতীকে আনার জন্য নুরুল ইসলাম ক’সহযোগিকে নিয়ে গাড়িসহ ওই যুবতীর বাসায় যান। তারা হাসপাতালে যাওয়ার কথা বলে যুবতীকে নিয়ে ধলাদিয়া কলেজ সংলগ্ন নুরুল ইসলামের একটি বাংলোতে যান। সেখানে একটি টিনশেড কক্ষে হত্যার ভয় দেখিয়ে যুবতীকে জোরপূর্বক ধর্ষন করেন নুরুল ইসলাম। পরে রবিবার ওই যুবতী ধর্ষনের এ ঘটনায় শ্রীপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। এরপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার বিকেলে জয়দেবপুর এলাকা থেকে নুরুল ইসলামকে গ্রেফতার করে পুলিশ। বুধবার তাকে আদালতে হাজির করা হলে আদালতের বিচারক জামিন না মঞ্জুর করে অভিযুক্ত নুরুল ইসলামকে কারাগারে প্রেরণ করেন।

গ্রেফতারকৃতের স্বজনরা জানান, বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের মিথ্যা ও সাজানো ঘটনায় নুরুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়েছে।