গাজীপুরে কম খরচে পড়াশুনা করানোর কথা বলে পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী এক শিশুকে আটকে রেখে প্রায় আড়াই মাস ধরে ধর্ষণের অভিযোগে এক মাদ্রাসা শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১’র সদস্যরা। শুক্রবার র‌্যাব-১’র স্পেশালাইজ কোম্পানী পোড়াবাড়ী ক্যাম্পের কোম্পানী কমান্ডার লেঃ কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন এ তথ্য জানিয়েছেন।

আটককৃতের নাম মোঃ আসাদুজ্জামান (৩৫)। তিনি খুলনার কসবা থানার উত্তর কাশি এলাকার মোঃ মোবারক আলীর ছেলে। তিনি গাজীপুরের শ্রীপুর থানা এলাকার ধলাদিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক।

র‌্যাব-১’র কোম্পানী কমান্ডার লেঃ কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল-মামুন জানান, শ্রীপুরের রাজাবাড়ি ইউনিয়নের ধলাদিয়া এলাকার রাজ্জাক মিয়ার বাড়িতে দুই ছেলে ও স্ত্রীকে নিয়ে ভাড়া থেকে স্থানীয় মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করেন আসাদুজ্জামান। তিনি ধলাদিয়া মহিলা মাদ্রাসায় কম খরচে পড়াশুনা করানোর ব্যবস্থা করে দেওয়ার আশ^াস দিয়ে গাজীপুর মহানগরীরর দক্ষিণ সালনা এলাকার হতদরিদ্র এক পরিবারের পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী এক শিশু মেয়েকে গত ২ আগস্ট বাড়ি থেকে নিয়ে যান। শিশুটিকে মাদ্রাসায় ভর্তি না করিয়ে ধলাদিয়ার একটি বাসায় আটকে রেখে দিনের পর দিন জোরপূর্বক ধর্ষণ করে আসছিলেন ওই মাদ্রাসা শিক্ষক আসাদুজ্জামান। এদিকে শিশুটির খোঁজখবর নিতে তার বাবা ওই মাদ্রাসা শিক্ষককে মোবাইলে ফোন করলে মেয়ে ভাল আছে এবং লেখাপড়া নিয়ে ব্যাস্ত আছে বলে জানাতো আসাদুজ্জামান। এভাবে প্রায় আড়াই মাস কেটে গেলে শিশুটির বাবার মনে সন্দেহের সৃষ্টি হয়। তিনি মেয়ের খোঁজখবর জানতে ও তাকে দেখতে ধলাদিয়া মহিলা মাদ্রাসায় গিয়ে মেয়েকে পান নি। পরে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন তার মেয়েকে মাদ্রাসায় ভর্তি না করিয়ে স্থানীয় একটি গোপন কক্ষে আটকে রেখে হত্যার ভয় দেখিয়ে দিনের পর দিন ধর্ষণ করে আসছেন মাদ্রাসা শিক্ষক আসাদুজ্জামান। এসময় ধর্ষণের ভিডিও চিত্র ধারণ করা হয়।

তিনি আরো জানান, নিরুপায় হয়ে মেয়েকে উদ্ধারের জন্য র‌্যাবের সহযোগিতা কামনা করেন শিশুটির বাবা। এরপ্রেক্ষিতে গোপন কার্যক্রম পরিচালনা শুরু করে র‌্যাব। বৃহষ্পতিবার দিবাগত রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-১’র পোড়াবাড়ী ক্যাম্পের সদস্যরা গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের দক্ষিণ সালনা এলাকায় অভিযান চালিয়ে আসাদুজ্জামানকে আটক করে। পরে তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে শ্রীপুরের ধলাদিয়া এলাকার তালাবদ্ধ একটি কক্ষ থেকে ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়। এঘটনায় ভিকটিমের বাবা শ্রীপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেছেন।