অপহরণ ও চাঁদাবাজির অভিযোগে জেলার সাঁথিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক হাসিবুল খান সানাসহ ৫ জনকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। এই চাঁদাবাজ চক্র উপজেলার চরভদ্রকোলা গ্রামের হেলাল উদ্দিনকে রোববার বিকালে অপহরণ করে নিয়ে আসে সাঁথিয়ায়। উপজেলা সদরের ডাক বাংলোর সামনে ‘সাঁথিয়া পৌর সভার মেয়র মাহবুবুল আলম বাচ্চুর ব্যাক্তিগত অফিস ‘ফেস টু ফেস’ অফিসে হেলালকে আটকে রেখে মারপিট ককরতে থাকে। হেলালের এক আত্মীয় বিষয়টি জাতীয় হেল্প লাইন ৯৯৯ কল করে অভিযোগ দেন। অভিযোগের ভিত্তিতে সাঁথিয়া থানা পুলিশ ৫ জনকে আটক করে। আটককৃতরা হচ্ছে : কোনাবাড়িয়া গ্রামের জামাল উদ্দিনের ছেলে হাসিবুল খান সানা ( উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারান সম্পাদক), চক নন্দনপুর গ্রামের জামাল সরদারের ছেলে মেহেদী হাসান রুবেল, কোনাবাড়িয়া গ্রামের নৃপেন চন্দ্রের ছেলে সন্দ্বীপ কুমার, চরভদ্রকোলা গ্রামের আজগর আলীর ছেলে ইয়াছিন আলী ও আবুল কালামের ছেলে মিলন। এ ব্যাপারে হেলাল উদ্দিন বাদী হয়ে সাঁথিয়া থানায় একটি অপহরণ ও চাঁদাবাজির মামলা দায়ের করেন। থানা সুত্র জানায়, দন্ডবিধির ৩৪২, ৩৬৫, ৩৩৪ এবং ৩৮৫ ধারায় মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। সাঁথিয়া থানার অফিসার ইনচার্জা আসিফ মোহাম্মদ সিদ্দেকুল ইসলাম জানান, চিহ্নিত এই সন্ত্রাসীরা চাঁদাবাজিসহ নানা অপকর্মের সাথে জড়িত এবং ইতোপূর্বে হাসিবুল খান সানাকে ২০২০ সালের ২৯ আগস্ট চাঁদাবাজির অভিযোগে পুলিশ গ্রেফতার করে। গ্রেফতারের পর কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ তাকে সাঁথিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে বহিস্কার করে। চার মাস হাজত বাসের পর সে জামিনে মুক্তি পায়। আবারো তিনি চাঁদাবাজির মামলায় গ্রেফতার হলেন। ওসি জানান, সোমবার সকালে আসামীদের পাবনা আদালতে পাঠানো হয়েছে।

কামাল সিদ্দিকী, পাবনা।
পাবনা জেলা প্রতিনিধি।