লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দর এলাকায় সহিদুন্নবী জুয়েলকে (৫০) পিটিয়ে মেরে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় খাদেম জুবেদ আলীসহ আরও ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ নিয়ে গ্রেফতারের সংখ্যা দাঁড়াল ১০ জনে।
সোমবার (২ নভেম্বর) সকালে পাটগ্রাম থানার ওসি সুমন কুমার মহন্ত গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এর আগে রোববার মধ্যরাতে বুড়িমারী ও পাটগ্রাম উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।
জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার (২৯ অক্টোবর) বিকেলে পাটগ্রাম উপজেলার বুড়িমারী বাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে এ ঘটনা ঘটে। ওই দিন কোরআন অবমাননার গুজব ছড়িয়ে সহিদুন্নবী জুয়েলকে পিটিয়ে-পুড়িয়ে হত্যা করে বিক্ষুব্ধ জনতা। ওই ঘটনায় পাটগ্রাম থানায় নিহতের চাচাত ভাই সাইফুল ইসলাম বাদী হয়ে শনিবার (৩১ অক্টোবর) একটি মামলা দায়ের করেন। তাছাড়াও বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের পক্ষ থেকে একটি মামলা দায়ের হয়েছে। আর পুলিশ বাদী হয়ে অপর মামলাটি দায়ের করেছেন। স্থলবন্দরে বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশের বিপুল সংখ্যক সদস্যসহ বিভিন্ন দপ্তরের সদস্যরা টহল দিয়ে যাচ্ছেন। তদন্তে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) টি এম মোমিনকে প্রধান করে ৩ সদস্যের একটি কমিটি করা হয়েছে। তদন্ত করেছেন মানবাধিকার সংস্থার দল। মামলা দায়ের হওয়ার পর ৫ আসামি গ্রেফতার করা হয়। আর রোববার মধ্যরাতে বুড়িমারী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খাদেমসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃত পাঁচজনকে আজ দুপুরে আদালতে পাঠানো হবে।
এদিকে ওই মামলায় পূর্বের গ্রেফতারকৃত ৫ আসামিকে ৫ দিন করে রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পরিদর্শক মাহমুদুন্নবী। আজ সোমবার (২ নভেম্বর) রিমান্ড আবেদনের শুনানির দিন ধার্য করে আসামিদের হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন আমলি আদালত ৩ এর বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বেগম ফেরদৌসী বেগম।
পাটগ্রাম থানার ওসি সুমন কুমার মহন্ত আরও জানান, গ্রেফতারকৃত পাঁচ আসামিকে দুপুরে লালমনিরহাট জেল হাজতে পাঠানো হবে।