অবশেষে লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দরে সাহিদুন্নবী জুয়েলকে পিটিয়ে ও পুড়িয়ে হত্যার করার ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত ডেকোরেটর মালিক আবুল হোসেনকে (৪৫) ঢাকায় গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।
আজ শনিবার (৭ নভেম্বর) ভোরে রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।
ডিবি মিরপুর বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মানস কুমার পোদ্দার জানান, রাজধানীর ভাটারা থানাধীন কুড়িল বিশ্বরোড এলাকা থেকে আবুল হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি লালমনিরহাটের আলোচিত ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার এজাহারনামীয় এক নম্বর আসামি। তিনি আরও বলেন, ‘আবুল হোসেন ঘটনার পর থেকে পলাতক ছিলেন। তিনি আত্মগোপনে ঢাকায় এসেছিলেন। গোপন তথ্যের ভিত্তিতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’ তাকে লালমনিরহাট পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলেও জানান ওই ডিবি কর্মকর্তা।
এর আগে ওই ঘটনায় গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় গ্রেপ্তার করা হয় রাজু নামের আরেক আসামিকে। তিনি জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার মদাতী ইউনিয়নের মুসরত মদাতী গ্রামের ইয়াকুব আলীর ছেলে। পাটগ্রাম পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা এবং আসবাবপত্র ব্যবসায়ী। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত ওই ঘটনায় ২৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।
এদিকে, গতরাতে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) ওসি ওমর ফারুক জানান, বুড়িমারী কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খাদেম জোবেদ আলীসহ চারজনকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।