মহামারি করোনাভাইরাসের টিকাদানের জন্য নির্ধারিত কেন্দ্র পরিবর্তনের সুযোগ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। টিকার প্রথম ডোজ যে কেন্দ্র থেকে নেওয়া হয়েছে, দ্বিতীয় ডোজ সেখান থেকে না নিয়ে অন্য কেন্দ্র থেকেও নেওয়া যাবে।

করোনার সংক্রমণ রোধে লকডাউনের কারণে অনেকে বিভিন্ন স্থানে আটকে পড়েছেন। ফলে পরবর্তী টিকাগ্রহণ নিয়ে উদ্বেগের মধ্যে গতকাল বুধবার এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ নিয়ম এক জেলা থেকে আরেক জেলা বা সিটি করপোরেশন এলাকার জন্য প্রযোজ্য হবে। তবে সিটি করপোরেশন বা জেলার অভ্যন্তরে টিকাদান কেন্দ্র পরিবর্তন করা যাবে না।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এমএনসিঅ্যান্ডএএইচের লাইন ডিরেক্টর ডা. মো. শামসুল হক স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়েছে, বিভিন্ন কারণে টিকা গ্রহীতাদের অনেকের পক্ষেই প্রথম ডোজ টিকা নেওয়ার স্থান থেকে দ্বিতীয় ডোজ টিকা নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। এ অবস্থায় প্রথম ডোজ নেওয়ার স্থান নির্বিশেষে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্ধারিত কেন্দ্রগুলো থেকে দ্বিতীয় ডোজ টিকা নেওয়া যাবে। তবে একই জেলা বা সিটি করপোরেশন এলাকার জন্য এই নিয়ম প্রযোজ্য হবে না। এক্ষেত্রে প্রথম ডোজ দেওয়ার ভ্যাকসিন কার্ড দেখিয়ে টিকা নিতে হবে।

বুধবার এই নির্দেশনা দেশের সব হাসপাতালের পরিচালক, সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, সিভিল সার্জন, সব সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক এবং উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

ডা. মো. শামসুল হক আজ বৃহস্পতিবার জানান, বিভিন্ন কারণে প্রথম ডোজ নেওয়া টিকাদান কেন্দ্র থেকে দ্বিতীয় ডোজ নিতে অনেকের সমস্যা হচ্ছে। এই দুর্ভোগ লাঘবের জন্য নতুন এই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তবে পুলিশ হাসপাতাল, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে এই নিয়মে টিকা নেওয়া যাবে না বলে জানান ডা. শামসুল হক।